পবিত্র রমজান এর আমল, গুরুত্ব ও ইতিহাস

পবিত্র রমজানঃ রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ধর্ম প্রচারের জন্য তায়েফে গেলে তায়েফের লোকেরা তাঁকে পাথর মেরে হত্যা করে। হজরত জিবরীল (আ.) দুই পর্বতকে একত্রিত করে তায়েফবাসীকে ধ্বংস করার অনুমতি চাইলেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, হে আল্লাহ তুমি তাদেরকে হেদায়েত দাও। আর একবার হজরত জিবরীল (আ.) বলেছিলেন “যে ব্যক্তি রমজান মাস পেল এবং তার গুনাহ মাফ করতে পারল না, সে ধ্বংস হোক”। একথা শুনে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘আমীন’। তায়েফের লোকেরা কাফেরদের জন্য প্রার্থনা করেনি, কিন্তু আল্লাহর রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মুসলমানদের জন্য প্রার্থনা করেছিলেন। কেন?

একটা উদাহরণ দিয়ে ব্যাপারটা বুঝুন- ধরুন আপনি একটি 15,16 বছরের ছেলেকে জিজ্ঞেস করলেন 5 + 5 কত, সে যদি এটা না করতে পারে তাহলে আপনি অবাক হবেন এবং এত সহজ জিনিস যোগ করতে না পারার জন্য তাকে তিরস্কার করবেন। এমনই রমজান মাসের ফজিলত এবং আল্লাহর অসীম রহমত নাযিল হয় যে, কেউ তার গুনাহ মাফ না করলেও সে তিরস্কারের যোগ্য যেমন 15, 16 বছর বয়সী ছেলে না পারার জন্য। বলুন 5 + 5. হজরত মোজাদ্দে আল ফেসানী (রহ.) তাঁর চিঠিতে বলেন, ‘রমজান মাসে যে রহমত নাজিল হয় তা সমুদ্রের তুলনায় এক ফোঁটা পানির মতো। এ কারণেই রমজান মাসে সব আসমানী কিতাব নাজিল হয়েছে। এ মাসে কোনো নফল করলে তা ফরজের সমান সওয়াব হবে এবং কোনো ফরজ করলে ৭০ গুণ সওয়াব হবে। আগে মুত্তাকি, আল্লাহর বান্দারা একে অপরের প্রশংসা করার সময় বলতেন, ওই ব্যক্তি জীবনে এতগুলো রমজান পেয়েছেন, এটাই তার গ্রহণযোগ্যতার প্রমাণ, সুবহানাল্লাহ। 

হাদিস শরিফে আছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দোয়া করতেন “হে আল্লাহ, রজব ও শাবান মাসে আমাদের বরকত দান করুন এবং আমাদেরকে রমজান পর্যন্ত দেখতে দিন”। এ মাস কত বরকতময়, এমনকি আল্লাহর রাসূলও এর জন্য দোয়া করতেন। সুবহানাল্লাহ আল্লাহ পবিত্র কোরআনে বলেছেন:

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ امَنُواْ كُتِبَ عَلَيْكُمُ الصِّيَامُ كَمَا كُتِبَ عَلَى الَّذِينَ مِن قَبْلِكُمْ لَعَلَّكُمْ تَتَّقُمْ

হে ঈমানদারগণ! তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করা হয়েছে, যেমন ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর, যাতে তোমরা তাকওয়া অর্জন করতে পার।

(সূরা বাকারা: 183)

উপরোক্ত আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলেন, রোজা ফরজ করা হয়েছে যাতে আমরা মুত্তাকী ও পরহেজগার হতে পারি। আর ধার্মিক হতে হলে প্রথমে পাপ ত্যাগ করতে হবে, তারপর বেশি বেশি ভালো কাজ করতে হবে।

পবিত্র রমজানে করণীয় ও বর্জনীয়

পাপ থেকে বিরত থাকা

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “অনেকে ক্ষুধা ও তৃষ্ণা ছাড়া রোজা রেখে কিছুই লাভ করে না। অন্য একটি হাদিসে বলা হয়েছে, “যে ব্যক্তি ফালতু কথাবার্তা ও পাপ কাজ থেকে বিরত থাকতে পারে না, আল্লাহ সুবহানাহু তা’আলার তার খাদ্য ও পানীয় পরিহার করার কোনো প্রয়োজন নেই। অর্থাৎ তার রোজা গ্রহণযোগ্য নয়। সহীহ আল-বুখারী (খণ্ড:৩, হাদিস:১২৭) 

সকল প্রকার পাপ থেকে বেঁচে থাকা উচিত। আরেকটি ভয়ঙ্কর পাপ হল গীবত করা। গীবত সংক্রান্ত একটি ঘটনা নিম্নে বর্ণিত হয়েছে:

গীবত থেকে বেঁচে থাকা: 

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর সময়ে দুই মহিলা রোজা রেখেছিলেন। উপবাসের সময় তাদের এত কষ্ট হয়েছিল যে তারা মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছিল। বিষয়টি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জানানো হলে তিনি তাদেরকে কুলি হতে বললেন। যখন তারা কাশি দেয়, তখন তাদের মুখ থেকে মাংসের ছোট টুকরো বেরিয়ে আসে। তারা বিস্মিত হয়ে বলল, আমাদের কোনো খাবার-পানীয় ছিল না। 

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, আসলে তুমি রোজা রেখেছ এবং অন্যদের অপবাদ দিয়েছ। আর গীবত হলো মৃত ভাইয়ের গোশত খাওয়া। বর্তমানে আমরা এমন অবস্থায় আছি যে নীরবতা সওয়াব, আর কথা বলা গীবত। অনেকে এটাকে পাপ মনে করেন না। সাধারণ মুসলমান থেকে শুরু করে আলেমরা এ পাপে লিপ্ত। গীবত করার আরেকটি ভয়ানক দিক হল, আপনি যাকে গীবত করছেন তার গুনাহগুলো আপনার আমলনামায় থাকবে এবং আপনার নেক আমলগুলো তার খাতায় থাকবে।

আমাদের আমল কতটা সংক্ষিপ্ত, তারপর ভালোগুলো চলে গেলে আফসোসের বিষয়। হযরত শেখ শাদী (রহ.) শৈশবে পিতার সাথে তাহাজ্জুদের নামাজ পড়তেন। একদিন সে তার বাবাকে বলল যে আব্বা বাড়ির অন্যরা তাহাজ্জুদের নামাজ পড়ছে না। তার বাবা বললেন, “তারা তোমার চেয়ে ভালো। তুমি নামায না পড়লে ওদের মতো ঘুমিয়ে পড়লে ভালো হতো।” 

শায়খ শাদী (রহঃ) এর কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, “তারা ঘুমাচ্ছে কিন্তু তারা কাউকে নিয়ে গসিপ করছে না, যা তুমি করছ”। ভাবতেই অবাক লাগে তারা কতটা সতর্ক ছিলেন। আজকে আমরা ভালো কাজের আদেশ এবং খারাপ কাজে নিষেধ করার চিন্তা করে পরনিন্দা করি। এটাও শয়তানের প্রতারণা।

অন্যান্য পাপ

আসুন এই রোজায় সকল গুনাহ থেকে তওবা করি। আমার মনে হয় এটাই আমাদের শেষ রোজা। যারা মোবাইলে গান শোনেন তাদের উচিত অন্তত এই মাসে গান বন্ধ করে কুরআন তেলাওয়াত, হামদ, কাসিদা শোনা। বাজারে যাদের দোকান আছে, তারা অন্তত এই মাসের সম্মানে টেলিভিশন বন্ধ করে দিন, গান-বাজনা বন্ধ করুন। 

আল্লাহ তায়ালা এর মাধ্যমে আপনাকে/আমাকে ক্ষমা করুন। সব সময় মনে কর বড় পাপ, কোন পাপ ছোট নয়। আশরাফ আলী থানভী (রহঃ) বলেন, কেউ কি কখনো বলে যে, এটি একটি ছোট আগুন এবং এটি একটি বড় আগুন। ছোট হোক বা বড় হোক, জ্বলতে ও ধ্বংস করার জন্য একটি আগুনই যথেষ্ট। তেমনি ছোট বা বড় সকল গুনাহ

ক্ষতিকর একবার এক বৃদ্ধ লোক রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল এবং দেখলো এক লোক বসে বসে কাঁদছে। এর কারণ জানতে চাইলে ওই ব্যক্তি বলেন, অনেক আগে এই জায়গায় আমি পাপ করেছি, মনে পড়ে কাঁদছি। সুবহানাল্লাহ এটাই প্রকৃত খোদাভীতি। এমন আমাদের অবস্থা, আমরা গর্ব করে পাপে চলি। একটা কথা মনে রাখবেন, খাদ্য বর্জন করা সহজ, কিন্তু পাপ থেকে বিরত থাকা খুবই কঠিন। এবং যদিও পাপ থেকে বিরত থাকা সহজ, আল্লাহ ছাড়া সব কিছু থেকে অন্তরকে দূরে রাখা আরও কঠিন

কল্যাণ অর্জন

সারা বছর আমরা নিজেদের জন্য ব্যয় করি, আল্লাহর জন্য একটি মাসও ব্যয় করি না। মহিলারা সেহরি, ইফতার রান্না করতে পারে এবং সবসময় জিকির করার সময় খাবার রান্না করতে পারে, পুরুষরা জিকির করার সময় ফসল তুলতে পারে এবং অফিসে কাজ করতে পারে। এটি আমাদের কাজের সমাধান করবে এবং আমরা পুরষ্কার পেতে থাকব। কাজের শুরুতে বিসমিল্লাহ বললে পূর্ণ কাজ সওয়াবের অন্তর্ভুক্ত হবে।

ধার্মিকদের কাজ

আসুন দেখি অতীতের ধার্মিক, পরহেজগার ব্যক্তিরা কীভাবে তাদের জীবন অতিবাহিত করেছেন। ইমাম আবু ইউসুফ (রহ.) প্রধান বিচারপতি ছিলেন কিন্তু তিনি দৈনিক 200 রাকাত নফল নামাজ পড়তেন। ইমাম আবু হানিফা (রহ.) রোজার মাসে দিনে ১ খতম, রাতে তাহাজ্জুদের সময় ১ খতম এবং তারাবীহের সময় ৩ খতম, অর্থাৎ রোজার মাসে প্রায় ৬৩ বার কোরআন তেলাওয়াত করেন। হযরত আলী কুরাইশী (রাঃ) মাঠে কাজ করতে যেতেন এবং যিকির করতেন। এভাবে তিনি প্রতিদিন ৭০ হাজার বার আল্লাহকে স্মরণ করতেন। জান্নাতে মুমিনদের একটাই আফসোস থাকবে, দুনিয়াতে যিকির ছাড়া সময় কাটানো। আল্লামা শরানী (রহ.) বলেন, আমরা এমন নেককার লোক দেখেছি যারা রোজার মাসে হাসি-ঠাট্টা করতেন। থেকেও বিরত ছিলেন।

নিজেকে জিজ্ঞাসা করুন?

আসুন আমরা নিজেদের বিবেচনা করি। আমাদের রোজা রাখার কারণ কী? এটা কি সত্যিই ঈশ্বরের কাছে গ্রহণযোগ্য? ইমাম গাজ্জালী (রহ.)-এর এই বিশ্লেষণ খুব মনোযোগ সহকারে পড়লে আমরা আমাদের নিজেদের রোজার মূল্যায়ন করতে পারব। ইমাম গাজ্জালী (রহ.) বলেছেন, রোজা তিন ধরনের: 

  1. সাধারণ রোজা: খাদ্য, পানীয় ও যৌন মিলন থেকে বিরত থাকা হল সাধারণ মুসলমানদের পালন করা রোজা। 
  2. যোগ্য ব্যক্তির রোজা বা কিছু মুসলমানের রোজা: উপরোক্ত ছাড়াও হাত, পা, চোখ ইত্যাদি গুনাহ থেকে বিরত রাখে। অর্থাৎ চোখের পাপ থেকে বিরত থাকা যেমন নারীর দিকে তাকানো, পুরুষের দিকে তাকানো, মুখের গুনাহ যেমন গীবত করা ইত্যাদি। 
  3. সমস্ত খারাপ চিন্তা থেকে মুক্ত এবং তার মনকে শুধুমাত্র আল্লাহর দিকে নিবদ্ধ রাখে। এটা খুবই কঠিন, যা শুধুমাত্র নবী-রাসূল, মুত্তাকিগণই করতে পারেন।

এখন আমরা নিজেদেরকে প্রশ্ন করি। আমরা কি উপরোক্ত ৩টি শর্ত অনুযায়ী আমাদের রোজা পালন করি??

উপসংহার

মনে রাখবেন, বাইরের দিকে মসজিদ তৈরি করা সহজ, কিন্তু ভিতরে মসজিদ তৈরি করা খুবই কঠিন। এ কারণে অলি-গলিতে এত মসজিদ থাকা সত্ত্বেও আমাদের অন্তর মসজিদের মতো পবিত্র নয়, সর্বদা গীবত, ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকে। একটি মুহূর্ত মিস করবেন না. এমনও হতে পারে যে আমি কাফনের কাপড় পড়ে দোকানে এসে হাসতে হাসতে পাপ কাজে লিপ্ত হচ্ছি। লোকেরা আমার জানাজার নামাজ পড়ার আগে, আসুন আমাদের নামাজ শুরু করি। চলুন এই রমজানে করি। আল্লাহ তায়ালা আমাদের আমল করার তৌফিক দান করুন। আমিন 

রেফারেন্স: 

  1. সিরাতুল আউলিয়া – আল্লামা ওহহাব শরানী (রহ:) 2. খুতবাতে জুলফিকার – মাওলানা জুলফিকার আহমদ (দা:বা:) 3. মাকতুবাত শরীফ – মোজাদ্দেদে আল ফেসানী (রহ:) 4. সহীহ আল বুখারি 5. রোজা সম্পর্কিত লেখাগুলি – ইমাম গাজ্জালী (রহঃ)

About admin

Check Also

সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি 2023 - ইসলামিক ফাউন্ডেশন

সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি 2023 – ইসলামিক ফাউন্ডেশন অনুযায়ী

পবিত্র রমজান মাস শুরু হচ্ছে আজ শুক্রবার (২৪ মার্চ)। রমজান জুড়ে এশার নামাজ শেষে তারাবিহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *